ফ্রী বিটকয়েন আয়ের সকল পদ্ধতি!!

0
315
বিটকয়েন কি? কেন ও বিটকয়েনের কাজ কি এই নিয়ে  আগেও অনেক টিউন হয়েছে। কিন্তু খুব সহজেই ক্যাপচা পূরণের মাধ্যমে কিভাবে বিটকয়েন আয় করা যায় আমি আজকে আপনাদের দেখাবো।
শুরুতে একটু বিটকয়েন সম্পর্কে ধারনা দেওয়া ভালো। বিটকয়েন হল ওপেন সোর্স ক্রিপ্টোগ্রাফিক প্রোটকলের মাধ্যমে লেনদেন হওয়া সাংকেতিক মুদ্রা। বিটকয়েন লেনদেনের জন্য কোন ধরনের অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠান, নিয়ন্ত্রনকারী প্রতিষ্ঠান বা নিকাশ ঘরের প্রয়োজন হয় না। ২০০৮ সালে সাতোশি নাকামোতো এই মুদ্রাব্যবস্থার প্রচলন করেন। তিনি এই মুদ্রাব্যবস্থাকে পিয়ার-টু-পিয়ার লেনদেন নামে অবিহিত করেন। এ ক্ষেত্রে সকল বিটকয়েন ব্যবহারকারি নিজ নিজ বিটকয়েন ওয়ালেট/অ্যাড্রেস ব্যবহার করে বিটকয়েন লেনদেন করে থাকেন। মাত্র ২৪ ডলার দিয়ে বিটকয়েন কিনে ৫ লাখ ইউরোর মালিক হয়ে যাওয়া নিয়ে ডিডাব্লিওর একটি মজার আর্টিকেল পড়ে আসতে পারেন এই লিঙ্ক থেকে।  কিভাবে আপনি বিটকয়েন ওয়ালেট/অ্যাড্রেস পাবেন?
বিটকয়েন ওয়ালেট/অ্যাড্রেস পাওয়ার জন্যে বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের সাইট আছে যারা আপনাকে বিটকয়েন লেনদেনের জন্যে বিটকয়েন ওয়ালেট খোলার সুযোগ দিয়ে থাকে। এমনই একটি সাইট হলো কয়েনবেস। আপনি এখানে ক্লিক করে আপনার নাম এবং ইমেইল আইডি ব্যবহার করে কয়েনবেসে আপনার জন্যে একটি বিটকয়েন ওয়ালেট খুলে ফেলতে পারেন। অ্যাকাউন্ট খুলার পর অ্যাকাউন্টি ব্যবহার করার জন্যে আপনাকে অবশ্যই ইমেইল আইডি ও মোবাইল নাম্বার ভেরিফাই করতে হবে। যদি আপনার আগে থেকেই বিটকয়েন ওয়ালেট/অ্যাড্রেস থেকে থাকে তাহলে সরাসরি নিচের ধাপে চলে আসুন।
বিটকয়েন আয় – আসলে অনেক সাইট আছে যারা আপনাকে তাদের সাইটের অ্যাড দেখার বিনিময়ে আপনাকে বিটকয়েন দিয়ে থাকে। এইসব সাইটে গিয়ে আপনার বিটকয়েন অ্যাড্রেস দিয়ে ক্যাপচা পূরণের মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই বিটকয়েন আয় করতে পারেন। আমি এখন আমার দেখা সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য কিছু সাইটের কথা এখানে আলোচনা করবো �� ফ্রী বিটকয়েন আয়ের সকল পদ্ধতি
প্রথমেই বলতে হয় গোল্ডস-ডে সাইটটি সম্পর্কে, প্রথমে সাইটটি ওপেন করুন। এরপর বিটকয়েন অ্যাড্রেসে আপনার বিটকয়েন আড্রেসটি পেস্ট করে স্পিন করুন। ভাগ্য ভালো থাকলে আপনি জ্যাকপটও পেয়ে যেতে পারেন এখানে  �� ফ্রী বিটকয়েন আয়ের সকল পদ্ধতি
স্পিন শেষ হলে ক্যাপচা পূরণ করে ক্লেইম করলেই আপনার ইপে.ইনফো অ্যাকাউন্টে সাথে সাথেই বিটকয়েন জমা হয়ে যাবে। একবার বিটকয়েন পাওয়ার ১০মিনিট পর আবার স্পিন করে বিটকয়েন পাওয়া যাবে এখানে।

এই ধরনের স্পিন করে বিটকয়েন পাওয়ার অন্য একটি সাইট হলো স্টারসবিট
স্পিন করার আরও একটি সাইট হলো ফ্রীবিটকয়েন.ওআরজি ।
এছাড়াও বিটকয়েন অ্যাড্রেস দিয়ে স্ক্যার্চ করার পর ক্যাপচা পূরণ করে বিটকয়েন আয়ের একটি সাইট হলো কয়েনকালেক্ট ।
বিটকয়েন আড্রেস দিয়ে ক্যাপচা পূরণ করে ক্লেইম করলেই পেয়ে যাবেন আপনার বিটকয়েন Crownfaucet সাইটটি থেকে।

ক্যাপচা পূরণ করে বিটকয়েন পাওয়ার অন্য একটি কিছু সাইট Coinfaucet ।

Goldfaucet থেকেও ক্যাপচা পূরণ করে ১০ মিনিট পর পর বিটকয়েন পাওয়া যাবে।

DreamFaucet থেকে ক্যাপচা পূরণ করে বিটকয়েন আয় করা যায়।

এই ধরনের আরও কিছু জনপ্রিয় সাইট আছে যেমন,  freecryptocoin Spinandwinonlinemilionsatoshi,  ।
এইসব সাইট থেকে বিটকয়েন ক্লেইম করার পর তা আপনার ইপে.ইনফো সাইটের অ্যাকাউন্টে জমা হবে এবং ৫৮০০ Satoshi হলেই ১ সপ্তাহের মধ্যেই আপনার বিটকয়েন আপনার ওয়ালেটে চলে আসবে।
CoinAd সাইটে রেজিস্ট্রেশান করে প্রতিদিন নির্দিষ্ট কিছু অ্যাড ক্লিক করে বিটকয়েন পাওয়া যায়।
এ ছাড়াও ল্যান্ড অফ বিটকয়েন সাইটের ইন্সট্যান্ট রেজিস্ট্রেশান করে অসংখ্য সাইট পাওয়া যাবে যে সব সাইটে ক্যাপচা পূরণ অথবা অ্যাড ক্লিক করার মাধ্যমে বিটকয়েন আয় করা যাবে।

বিটকয়েন তো অনেক আয় করলেন, এখন বিটকয়েনের টাকা হাতে পাবেন কি করে? বিটকয়েন আপনার কয়েনবেস অ্যাকাউন্টে জমা হয়ে গেলে আপনি সরাসরি নেটেলারে আপনার বিটকয়েন ডিপোজিট করতে পারবেন।

এ ছাড়াও আপনি বিটকয়েন দিয়ে ভার্চুয়াল অনেক কিছুই কিনতে পারবেন যেমন ডোমেইন, হোস্টিং সার্ভার, গুগুল প্লে প্রোডাক্ট ইত্যাদি।
আজ এ পর্যন্তই। কোন সমস্যা হলে টিউমেন্ট করবেন, আমি আমার সাধ্যমত সাহায্য করার চেষ্টা করবো।
ভালো থাকবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here