২৩ বছরের তরুণী ৬০ বছরের বৈজ্ঞানিক ধারণাকে সত্য প্রমাণ করলেন

0
160
২৩ বছরের তরুণী ৬০ বছরের বৈজ্ঞানিক ধারণাকে সত্য প্রমাণ করলেনপৃথিবীর চারদিকে চৌম্বক ক্ষেত্রের কাঠামো নিয়ে প্রচলিত ৬০ বছরের পুরনো তত্ত্বকে অবশেষে সরাসরি সত্য বলে ঘোষণা করা হয়েছে। তবে বড় বড় বিজ্ঞানীরা যে কাজটি এতো দিন ধরে করতে পারেননি, তা করে দেখিয়েছেন মাত্র ২৩ বছরের এক তরুণী।
ইউনিভার্সিটি অব সিডনি এর আন্ডারগ্র্যাজুয়েট শিক্ষার্থী ক্লিও লই এই অসাধ্য সাধন করেছেন। নিজের গবেষণা প্রতিবেদনে তিনি পৃথিবী গ্রহের ম্যাগনেটোস্ফিয়ারের চিত্রটিকে ত্রিমাত্রিকভাবে উপস্থাপন করতে সক্ষম হয়েছেন।
সূর্য থেকে প্রতিনিয়ত চার্জযুক্ত বাষ্পীয় কণা নির্গত হচ্ছে। এর সঙ্গে সুপারনোভার মতো উৎস থেকে যোগ হচ্ছে মহাজাগতিক রশ্মি। এসব কণা যখন পৃথিবীর দিকে ধাবিত হয়, তখন তা পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্রের দ্বারা প্রভাবিত হয়। এ সময় কিছু কণা পথচ্যুত হয় এবং কিছু অংশ মেরুর দিকে পরিচালিত হতে থাকে। এই প্রক্রিয়াটি দৃশ্যমান হতে পারে, ঠিক যেভাবে মরুজ্যোতির সৃষ্টি হয়।
ম্যাগনেটোস্ফিয়ারের অভ্যন্তরীন স্তর হিসাবে যুক্ত হয় আয়নোস্ফিয়ার এবং প্লাজমাস্ফিয়ার। এই অংশের পুরো গঠন সম্পর্কে আমাদের পরিষ্কার ধারণা নেই। এগুলো পরিষ্কারভাবে বুঝতে পারলে অনেক কিছুই স্পষ্ট হয়ে যাবে। আয়নোস্ফিয়ার স্যাটেলাইট নেভিগেশন সিস্টেমকে প্রভাবিত করে এবং এই চিত্র গৃহীত হয় রেডিও টেলিস্কোপের মাধ্যমে।২৩ বছরের তরুণী ৬০ বছরের বৈজ্ঞানিক ধারণাকে সত্য প্রমাণ করলেনক্লিও তার অনার্স প্রজেক্টে এ কাজ করতে গিয়ে উপলব্ধি করেন, তিনি মার্কিসন ওয়াইডফিল্ড অ্যারি (এমডাব্লিউএ) রেডিও টেলিস্কোপ ব্যবহার করতে পারেন। এর মাধ্যমেই তিনি ম্যাগনেটিক ফিল্ডের চিত্র ধারণ করেছেন যা এ যাবতকাল এ কাজে ব্যবহৃত হয়নি। এমডাব্লিউএ হলো স্কয়ার কিলোমিটার অ্যারি (এসকেএ) এর অগ্রদূত যাতে তিন কিলোমিটারজুড়ে ১২৮টি অ্যান্টেনা যুক্ত রয়েছে।
ক্লিও পরামর্শ দেন, ওই অ্যারি এর পূর্ব এবং পশ্চিম কোণ থেকে দুই ভাগে বাইনোকুলার দিয়ে পর্যবেক্ষণ করলে ত্রিমাত্রিক চিত্রটি পাওয়া যায়।

লই আয়নোস্ফিয়ার ও প্লাজমাস্ফিয়ারের সঙ্গে উচ্চ এবং নিম্ন ঘনত্বের প্লাজমা টিউবের সংযোগ ঘটিয়েছেন। এরা সমদূরত্বে থেকে পাশাপাশিভাবে ম্যাগনেটিক ফিল্ডের দিকে ধাবিত হয়েছে। তিনি বলেন, ভূমি থেকে ৬০০ কিলোমিটার উর্ধ্বে আয়নোস্ফিয়ারের উর্ধ্বাংশ পর্যন্ত এদের অবস্থান পর্যবেক্ষণ করেছি। এরা প্লাজমাস্ফিয়ার পর্যন্ত উঠে গেছে এবং মোটামুটি যেখানে নিউট্রাল অ্যাটমোস্ফিয়ার শেষ হয়েছে সে অবধি চলে গেছে।
এমডাব্লিউএ এর ৩০ ডিগ্রি কোণে বিশাল বিশাল ফিল্ড দেখতে পেয়েছেন লই। আয়নোস্ফিয়ার নিয়ে গবেষণা করতে এসকেএ ব্যবহারের প্রয়োজন নেই। তবে এ গবেষণা বিষয়ে আরো কাজ হলে বিষয়টি স্পষ্ট হবে, জানান ক্লিও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here