অনলাইনে ব্যবসা : মার্কেটিং এর A টু Z!!

0
314

ধরুন আপনার অসাধারণ কিছু প্রোডাক্ট আছে। খুব সুন্দর করে কন্টেন্ট তৈরী করে নিজের ওয়েবসাইট সাজিয়েছেন। পণ্যের ছবি এবং বর্ণনা খুব ভাল করে তুলে ধরেছেন। এখন শুধু পণ্য বিক্রির অপেক্ষায়! কিন্তু অনলাইন ব্যবসায় সব ধরনের প্রস্তুতি থাকার পরও নিজের ওয়েবসাইটে ট্রাফিক জেনারেট করা এবং নিয়মিত বিক্রির সম্ভাবনার ব্যাপারটি অনেকাংশে নির্ভর করে আপনার ওয়েবসাইট তথা পণ্যের সঠিক এবং কার্যকরী মার্কেটিং এর উপরে। ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের জন্য ব্যাপারটি বরং আরও কঠিন। তাদের ক্ষুদ্র পুঁজির ব্যবসার সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জই হল পণ্যের বিপণন এবং প্রচারণার অংশটি।

অনলাইনে ব্যবসা : মার্কেটিং এর A টু Z

এই পোস্টে আমরা চেষ্টা করেছি কি কি উপায়ে নিজের ওয়েবসাইটের মার্কেটিং করতে পারেন এবং পণ্যের বিক্রির হার বৃদ্ধি করতে পারেন, সেই বিষয়গুলো তুলে ধরতে। আসুন পড়ে ফেলি ঝটপট।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সক্রিয় উপস্থিতিঃ অনলাইনেই ঘর, অনলাইনেই বসতি

  • Facebook Account & Facebook Fan Page: নিজের ব্যক্তিগত ফেসবুক অ্যাকাউন্ট এবং আপনার ব্যবসার ফেসবুক পেজে বন্ধু বা ফলোয়ার বাড়ানোর চেষ্টা করুন। ফেসবুকে নিয়মিত আপনার ওয়েবসাইটের বিভিন্ন পণ্যের লিঙ্ক শেয়ার করুন।
  • LinkedIn: লিঙ্কডইনে নিজের ব্যক্তিগত এবং ব্যবসার প্রোফাইল খুলুন এবং সব ধরণের তথ্য সহ হালনাগাদ রাখুন। নিয়মিত পণ্যের লিঙ্ক শেয়ার করুন।
  • Youtube: ইউটিউবে ব্যবসার চ্যানেল খুলতে পারেন। সেখানে আপনার পণ্যের রিভিউ, ব্যবহারবিধি, কাস্টমার ফিডব্যাক ইত্যাদির ভিডিও কন্টেন্ট আপলোড করতে থাকুন এবং নিয়মিত অন্যান্য যোগাযোগ মাধ্যমে সেগুলো শেয়ার করুন।
  • Twitter: টুইটারে নিজের এবং কোম্পানির অ্যাকাউন্টে ফলোয়ার বাড়ানোর চেষ্টা করুন এবং নিয়মিত পণ্যের লিঙ্ক শেয়ার করুন। হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে নিজের পণ্যকে আরো নির্দিষ্ট করে ভিজিটরদের কাছে তুলে ধরুন।
  • Instagram: ইনস্টাগ্রাম ইদানিং খুব জনপ্রিয়। নিজের এবং ব্যবসার অ্যাকাউন্ট থেকে নিয়মিত পণ্যের ছবি এবং লিঙ্ক শেয়ার করতে পারেন। আর এখানে যেহেতু ছবির গুণগত মান বেশ সমৃদ্ধ তাই আকর্ষণীয় ছবি আপলোড করুন আপনার পণ্যের।

কন্টেন্ট মার্কেটিংঃ কন্টেন্ট কথা বলে

  • গেস্ট পোস্ট এবং কমেন্টঃ বিভিন্ন ফোরামে বা ব্লগে আপনার ব্যবসার সাথে সম্পর্কিত কোন আলোচনায় গেস্ট হিসেবে নিজের ওয়েবসাইট বা নির্দিষ্ট পণ্যের লিঙ্ক শেয়ার করুন এবং সেখানে এনগেজমেন্ট তৈরী করুন।
  • ভাইরাল ভিডিওঃ নিজের পণ্যের সাথে সম্পর্কিত ইন্টারেস্টিং, চমক জাগানো যে কোন বিষয় নিয়ে ভিডিও তৈরী করতে পারেন যা আপামর ভিজিটরদের মধ্যে একটি পজেটিভ চাঞ্চল্য সৃষ্টি করতে পারে। লক্ষ্য রাখবেন ভিডিও যেন দুই আড়াই মিনিটের বেশি লম্বা না হয়!
  • ব্লগে লেখালেখিঃ নিজের বা ব্যবসা সম্পর্কিত ব্লগে পণ্যের রিভিউ বা গুনাগুন, পণ্য তৈরীর পেছনের গল্প ইত্যাদি সম্পর্কে নিয়মিত লিখুন। ব্যবসা বা পণ্যের সাথে সম্পর্কিত অন্যান্য ব্লগেও কমেন্ট করুন, এনগেজমেন্ট বাড়ান। ব্লগের সাবস্ক্রাইবারদের নিয়মিত আপডেট পাঠান।
  • কন্ট্রোভার্সিয়াল কন্টেন্টঃ ব্লগে বা সামাজিক মাধ্যমে ব্যবসা সম্পর্কিত একটু আক্রমনাত্তক, তুলনামূলক বা নেগেটিভ কিছু নিয়ে আলাপ জুড়ে দিতে পারেন। সাধারণত বিতর্কিত বিষয়ে পাবলিক এনগেজমেন্ট বেশি হয়। তবে এক্ষেত্রে খুব কৌশলী হতে হবে, উপস্থাপনায় শালিনতা থাকতে হবে।
  • ইমেইল এবং ফোন নাম্বারের ডেটাবেইজঃ যেখান থেকে যেভাবে পারেন ইমেইল এবং এসএমএস মার্কেটিং এর জন্য পাবলিক ইমেইল এবং ফোন নাম্বার জোগাড় করে একটি ডেটাবেইজ তৈরী করুন। ইমেইল মার্কেটিং খুবই কার্যকরী একটি মার্কেটিং টুল।

অনলাইনে পেইড বিজ্ঞাপনঃ ফেলো কড়ি মাখো তেল

  • ফেসবুকে বিজ্ঞাপনঃ ফেসবুকে সম্ভাবনাময় ক্রেতার আনাগোনা বেশি থাকে। মাঝেমাঝে আপনার পণ্যের টার্গেট অডিয়েন্স সেট করে পোস্ট বা ওয়েবসাইট বুস্ট করুন। অল্প সময়েই কিছু সেল করে নিতে পারবেন। বিভিন্ন উৎসব উপলক্ষ্যে ফেসবুকে পেইড বিজ্ঞাপণ ব্যবহার করতে পারেন।
  • গুগল অ্যাডওয়ার্ডসঃ গুগল অ্যাওয়ার্ডসের মাধ্যমে খুব সহজেই নিজের ওয়েবসাইট এবং পণ্যের বিজ্ঞাপণ দিতে পারেন। এর মাধ্যমে আপনি দ্রুত গুগল সার্চ ইঞ্জিনে উঠে আসবেন এবং ওয়েবসাইটেও ভিজিটর পাবেন।
  • বিভিন্ন সাইটে বিজ্ঞাপনঃ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠিত চালু সাইট, জব সাইট মার্কেটপ্লেস, ক্রয় বিক্রয় অ্যাডভার্টাইজিং সাইট, প্রাইস কম্পেয়ারিং সাইটে ব্যানার বা কলাম হিসেবে নিজের ওয়েবসাইটের পেইড বিজ্ঞাপণ দিতে পারেন।

সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিংঃ বিনি সুতা মালা গাঁথিছে নিতুই

  • সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (SEO)ঃ ইন্টারনেট মার্কেটিং এর অন্যতম উপাদান এসইও। আপনার ওয়েবসাইট এবং পণ্যের এসইও করুন মেটা টাইটেল, মেটা ট্যাগ এবং ডেস্ক্রিপশনের মাধ্যমে। এর মাধ্যমে সার্চ ইঞ্জিনে আপনার ওয়েবসাইটের র‍্যাঙ্ক বৃদ্ধি পাবে এবং সার্চে আপনার পণ্যের লিঙ্ক আগে দেখাবে।
  • ওয়েব অ্যানালাইটিক্সঃ গুগল অ্যানালাইটিক্সের মাধ্যমে আপনার ভিজিটররা ওয়েবসাইটে কে কি করছে তা মনিটর করতে পারবেন। ওয়েবসাইটে ভিজিটরের ট্রেন্ড এবং প্যাটার্ন ফলো করে সেই অনুযায়ী তাদেরকে ট্রিট করতে পারবেন।
  • কম্পারিজন শপিং ইঞ্জিনঃ যে সব কম্পারিজন শপিং সাইট বিভিন্ন সাইট থেকে পণ্য তুলে এনে তুলনামূলক বিচার করে থাকে সেসব সাইটে কিভাবে আপনার পণ্য তুলে ধরা যায় সেটি নিয়ে কাজ করুন। সম্ভাবনাময় অনেক ক্রেতাই এই ধরণের সাইটের শরণাপন্ন হয়।
  • মোবাইল ফ্রেন্ডলি ওয়েবসাইটঃ আপনার ওয়েবসাইট যেন মোবাইল ফ্রেন্ডলি হয় সেটি নিশ্চিত করুন। কাস্টমার যেন যে কোন ডিভাইস থেকে ওয়েবসাইট পরিপূর্ণভাবে ব্রাউজ করতে পারে সেদিকে লক্ষ্য রাখুন।

পাবলিক রিলেশনসঃ মানুষের মুখ ক্ষয়, মানুষের মুখে জয় 

  • প্রোডাক্ট রিভিউঃ পিআর ব্যবহার করে আপনার কাস্টমার বা বিভিন্ন চালু প্রোডাক্ট রিভিউ ওয়েবসাইট থেকে আপনার পণ্যের রিভিউ লিখিয়ে নিতে পারেন। ভাল কাজে দিবে আশা করা যায়।
  • প্রেস রিলিজঃ নিজের ব্যবসার একটি প্রেস রিলিজ করুন, মিডিয়াকে জানান। ওয়েবসাইটে দেখবেন ভিজিটরের ভিড় জমে গেছে।
  • ব্যতিক্রম এবং সাড়া জাগানো পণ্যঃ গতানুগতিকের বাইরে ভিন্ন কিছু পণ্য নিয়ে কাজ করুন যেগুলো আপামর জনসাধারণের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলতে পারে। মানুষের মুখে মুখে তখন আপনার পণ্যের বিপনন চলবে।
  • প্রভাবশালীদের সাক্ষাতকারঃ আপনার ব্যবসা সংক্রান্ত ইন্ডাস্ট্রির প্রভাবশালী এবং সফল মানুষদের সাক্ষাৎকার নিতে পারেন। ব্লগে এধরণের সাক্ষাৎকার ছাপালে ওয়েবসাইটে ভিজিটর তুলনামূলক বৃদ্ধি পায়।
  • ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের সাফল্যের গল্পঃ পিআর ব্যবহার করে বিভিন্ন ব্যবসার ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের সফল হবার গল্প তুলে ধরুন। তাদের সংগ্রাম এবং সফল হওয়ার পেছনের গল্প ব্লগে লিখুন। সাধারণ মানুষ এই ধরণের লেখায় অনুপ্রাণিত হয়। আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিট বাড়াতে সাহায্য করবে।

অফলাইন মার্কেটিংঃ বাস্তবের চৌকাঠেও পা রাখা চাই

  • লোকাল বিজনেস নেটওয়ার্কঃ আপনার ব্যবসার লোকাল নেটওয়ার্কে অ্যাক্টিভিটি বাড়ান। অন্যান্য ব্যবসায়ীদের সাথে সুসম্পর্ক রাখুন। সুযোগ বুঝে সেখানে নিজের পণ্য উপস্থাপন করুন।
  • মেলায় অংশগ্রহনঃ ছোট বা বড় সুবিধাজনক বিভিন্ন মেলায় অংশ নিন। আপনার সকল পণ্যের সমাহার নিয়ে মেলায় দর্শক ক্রেতা সাধারণের মাঝে নিজেকে উপস্থাপন করুন।
  • সভা সেমিনারে অংশগ্রহনঃ আপনার ব্যবসা সংক্রান্ত বিভিন্ন সভা সেমিনার কনফারেন্স ইত্যাদিতে অংশ নিন। সক্রিয় ভূমিকা রাখুন সেখানের কার্যকলাপে। প্রয়োজনীয় লিঙ্ক তৈরী করার ভাল সুযোগ পাবেন।
  • পাইকারী বিক্রিঃ খুচরা বিক্রির পাশাপাশি সম্ভব হলে পাইকারী বিক্রিরও চেষ্টা করুন। খুচরা বিক্রেতাদেরকে পণ্য সাপ্লাইয়ের চেষ্টা করুন। এগুলোর মাধ্যমে আপনি অধিক সংখ্যক ব্যবসায়ীর সাথে লিঙ্ক তৈরী করতে পারবেন এবং বিক্রি চলতে থাকবে।
  • সেলস টিমঃ পরিকল্পনা অনুযায়ী ছোট বা বড় সেলস টিম বানাতে পারেন। প্রয়োজনে কমিশনের ভিত্তিতে পণ্য বিক্রয়ের চুক্তি করুন। তবে সেলস টিমকে আগে প্রশিক্ষিত করে নেয়া উচিৎ। এই ধরণের সেলস টিমের মাধ্যমে ভাল সেল পাওয়া যায়।

প্রচলিত মার্কেটিংঃ ওল্ড ইজ অলওয়েজ গোল্ড

  • ফেরি করে বিক্রিঃ প্রয়োজনে এলাকায় মানুষের বাড়ি বাড়ি যান, আপনার পণ্যটি তাদেরকে হাতে নিয়ে পরখ করতে দিন। আপনার পণ্যের গুনাগুন বা ভিন্নতা তুলে ধরুন। কিছু সেল যে পাবেন তা নিশ্চিত।
  • পত্রিকায় বিজ্ঞাপনঃ বহুল প্রচারিত পত্রিকায় বাজেট অনুযায়ী ছোট বড় বিজ্ঞাপণ দিতে পারেন। অবশ্যই ওয়েবসাইটের লিঙ্ক উল্লেখ করবেন। এলাকাভিত্তিক ছোট খাট পত্রিকাতেও বিজ্ঞাপণ দিতে পারেন। পণ্যের ভাল বিপনন হবে আশা করা যায়।
  • ইভেন্ট স্পন্সরঃ আপনার ব্যবসা সম্পর্কিত বা এলাকাভিত্তিক কোন ইভেন্টে স্পন্সর করুন। এর ফলে ইভেন্টে অংশগ্রহনকারীরা এবং মিডিয়ার মাধ্যমে আরো অনেকেই আপনার ব্যবসা বা পণ্য সম্পর্কে আগ্রহবোধ করবেন এবং আপনি ওয়েবসাইটে ভালই ভিজিটর পাবেন।
  • আউটডোর বিজ্ঞাপণঃ আপনার ব্যবসার ওয়েবসাইটের লিঙ্কসহ ব্রশিউর বা ফ্লায়ার তৈরী করে এলাকায় বা সম্পর্কিত ইভেন্টে বিলি করতে পারেন। বিভিন্ন অফারও এভাবে ছড়িয়ে দিতে পারেন, মার্কেটিং হয়ে যাবে। প্রয়োজনে বাজেট অনুযায়ী ব্যানার বা বিলবোর্ডের কথাও চিন্তা করতে পারেন।

আরও যা আছে করার বাকি

  • পরিবার ও বন্ধুবান্ধবের কাছে মার্কেটিংঃ আপনার ব্যবসা এবং ওয়েবসাইটে পরিবার এবং বন্ধুদের পরিচিত করুন। তাদের কাছে পারলে বিক্রি করুন। সাথে সাথে তারা যেন তাদের বন্ধুবান্ধবদের আপনার ওয়েবসাইটের লিঙ্ক ছড়িয়ে দেয় সেই অনুরোধ করুন।
  • মার্কেটপ্লেসে বিক্রিঃ বিভিন্ন অনলাইন মার্কেটপ্লেসেও আপনার পণ্যগুলো তুলে ধরুন। মার্কেটপ্লেসে প্রচুর ক্রেতার আনাগোনা থাকে, তাই সহজেই ভিজিটর বা ক্রেতা সাধারণের কাছে পণ্য তুলে ধরতে পারবেন।
  • কুপন কোডঃ বিভিন্ন সময় বিভিন্ন উপলক্ষ্যে ডিস্কাউন্ট কুপন চালু করতে পারেন। সাধারণত মানুষ এই ধরণের ডিস্কাউন্ট অফারে কেনাকাটা করতে পছন্দ করে। এছাড়াও নিয়মিত ক্রেতাদের জন্য লয়ালিটি ডিস্কাউন্ট বা বোনাস পয়েন্ট সিস্টেমও রাখতে পারেন। এগুলো আপনার পণ্যের বিক্রয় এবং বিপননে অনেক সহায়ক হবে।
  • অ্যাফিলিয়েটেড মার্কেটিংঃ অন্যদের মাধ্যমে নিজের পণ্যের অ্যাফিলিয়েটেড মার্কেটিং করাতে পারেন। ইদানিংকালে এটি পণ্যের মার্কেটিং এর জন্য একটি জনপ্রিয় মাধ্যম।
  • ইন্ডাস্ট্রি ইকোসিস্টেমে সম্পর্ক স্থাপনঃ আপনার ব্যবসার সাথে জড়িত সাপ্লাইয়ার, পরিচালক, নিয়ন্ত্রক, ক্রেতা সাধারণ সকল শ্রেনীর সাথে একটি আন্তরিক সম্পর্ক রেখে চলুন। ব্যবসার সার্থে একে অন্যের যেন কাজে আসতে পারেন, সবাই যার যার ক্ষেত্রে লাভবান হতে পারেন এমনটা হলেই ভাল হয়। এই সম্পর্ক উন্নয়নের মাধ্যমে আপনার ব্যবসারই কিন্তু প্রচারণা হবে।
  • চলতি ধারার সাথে তাল মিলানোঃ চলতি ধারায় কোন ধরণের পণ্য বাজারে চলছে বা এলাকাভিত্তিক, বয়সভিত্তিক কোন ধরণের পণ্য চলে এগুলোর খোঁজ ঠিক মত করে সেভাবেই মার্কেটিং পরিকল্পনা করা উচিৎ।
  • পণ্যের রিটার্ন বা রিফান্ড পলিসিঃ আপনার ব্যবসায় পণ্যের রিটার্ন এবং রিফান্ড পলিসি নিয়ে কাজ করুন। এটি ক্রেতা বিক্রেতার মাঝে একটি আস্থা বিশ্বাসের সম্পর্ক স্থাপন করে যা ব্যবসায় টিকে থাকতে হলে খুবই দরকার। ক্রেতাদের মুখে মুখে আপনার পলিসির মার্কেটিং চলবে এবং আপনিও অধিক পরিমান সেল পাবেন আশা করা যায়।
  • ধৈর্য্য ধরুনঃ অনলাইন ব্যবসায় বিক্রি সবসময় সহজ হবে এমনটা আশা করা বোকামি। অনেক পরিশ্রম করতে হবে, ধৈর্য্য ধরে লক্ষ্যে অবিচল থেকে সঠিক পরিকল্পনায় চললেই অনলাইন সেলিং আস্তে আস্তে সহজ হয়ে যাবে।

পরিশেষে যেটি বলতে হয় প্রতিযোগিতামূলক বাজারে নিজের স্বতন্ত্র ব্র্যান্ড ইমেজ প্রতিষ্ঠা করা একটি বড় চ্যালেঞ্জ, আবার সেই চ্যালেঞ্জকে অতিক্রম করতে পারলেই সাফল্য অনিবার্য। নিজের ই-কমার্স ব্যবসাটিকে স্বল্পমেয়াদী চিন্তা না করে একটু লম্বা সময় নিয়ে পরিকল্পনা করুন। পণ্যের মান এবং ডেলিভারী সার্ভিসের প্রতি জোর দিন। ব্যতিক্রমী পণ্য নিয়ে কাজ করলে কাস্টমারের মনযোগ বেশি পাওয়া যায়। আস্তে আস্তে প্রচারণার প্রতিটি কৌশল প্রয়োগ করুন। ক্রেতার সাথে সবসময় আন্তরিক এবং আস্থার সম্পর্ক স্থাপনের চেষ্টা করুন। একটু ধৈর্য্য ধরে লেগে থাকুন, সাফল্য আসবেই।

ফুটনোটঃ লেখাটি দেশী বিদেশী বিভিন্ন ইকমার্স প্ল্যাটফর্মের মার্কেটিং টিপস সম্বলিত ব্লগ থেকে অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করে লেখা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here